ঢাকা, বৃহস্পতিবার ২৩ নভেম্বর ২০১৭  ,
০৯:৫৮:৪৯ জুন  ২২, ২০১৭ - বিভাগ: অর্থনীতি


ঈদে ওয়ালটন ফ্রিজ, টিভি, হোম অ্যাপ্লায়েন্সেস বিক্রির ধূম

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:

দুয়ারে কড়া নাড়ছে ঈদ। আর কয়েকদিন পরই সেই মাহেন্দ্রক্ষণ! ঈদকে ঘিরে দেশজুড়ে চলছে কেনা-কাটার উৎসব।  জামা-জুতো কেনার পর এখন সবাই ছুটছেন ইলেকট্রনিক্স পণ্যের দোকানে। আর দেশজুড়ে ওয়ালটন প্লাজা ও ডিস্ট্রিবিউটর শোরুমগুলোতে ক্রেতাদের বেজায় ভিড়। শুরু হয়েছে ফ্রিজ, টিভি, মোবাইল ফোন, ল্যাপটপ, এসি ও হোম এ্যাপ্লায়েন্স বিক্রির ধূম। দেশের প্রতিটি প্রান্তেই দেদারসে বিক্রি হচ্ছে ওয়ালটন ব্র্যান্ডের বিভিন্ন পণ্য। 
ওয়ালটন সূত্রমতে, ঈদ যতই ঘনিয়ে আসছে ওয়ালটন শোরুমে ক্রেতা সমাগম ততোই বাড়ছে। সকাল থেকে রাত পর্যন্ত ক্রেতার পদচারণায়  মুখর হয়ে উঠেছে ওয়ালটন শোরুমগুলো। শেষ মূহুর্তে ক্রেতাদের সেবা দিতে শশব্যস্ত বিক্রয় প্রতিনিধিরা। সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, অর্থনৈতিক কর্মকান্ডের চাকা সচল থাকায় এবারের ঈদে ইলেকট্রনিক্স পণ্যের বিক্রি বেশ ভালো। গত বছরের তুলনায় সব ধরনের হোম অ্যাপ্লায়েন্সেস বিক্রি বেড়েছে কয়েকগুণ। বিশেষ করে নন-ফ্রস্ট ফ্রিজের বিক্রি ব্যাপক বেড়েছে। তবে দৃষ্টিনন্দন টেম্পারড গ্লাস ডোর, ব্যাচেলর ও বার ফ্রিজ বিক্রি হচ্ছে বেশি। 
জানা গেছে, ঈদুল ফিতর’কে কেন্দ্র করে চলতি রমজান মাসে দুই লাখের বেশি ফ্রিজ এবং ৫৭ হাজার এলইডি টেলিভিশন বিক্রির লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছিল ওয়ালটন। পাশাপাশি, এবারের রোজায় গতবারের চেয়ে ৩০ শতাংশ বেশি হোম এ্যাপ্লায়েন্সেস বা গৃহস্থালী পণ্য বিক্রির টার্গেট নিয়েছে দেশীয় ব্র্যান্ডটি। লক্ষ্যমাত্রা পূরণে রোজার শুরুতেই বাজারে ছেড়েছে ২৬টি নতুন মডেলের ফ্রস্ট ও নন-ফ্রস্ট ফ্রিজ, ৩২ ইঞ্চির ৬ মডেলের এলইডি টিভি। নতুন মডেলের হোম অ্যাপ্লায়েন্সেসের মধ্যে রয়েছে রাইস কুকার, জুসার, ব্লেন্ডারসহ বেশকয়েকিট পণ্য। ফলে, চলতি রমজানে ওয়ালটনের বিক্রি অনেক বেড়েছে বলে জানিয়েছেন দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে কর্মরত ওয়ালটন বিপণন বিভাগের কর্মকর্তারা। 
রাজশাহী জোনের এরিয়া ম্যানেজার মো. দেলোয়ার হোসেন জানান, ওয়ালটন পণ্যের প্রতি এ অঞ্চলের গ্রাহকদের আস্থা ও চাহিদা অনেক বেড়েছে। বিশেষ করে, ঈদকে ঘিরে বাজারে আসা ওয়ালটনের নতুন মডেলের ইনভার্টার প্রযুক্তির নন-ফ্রস্ট ও টেম্পারড গ্লাস ডোরের রেফ্রিজারেটর, ২৪ ও ৩২ ইঞ্চি এলইডি টিভি গ্রাহক পর্যায়ে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে। এরই প্রেক্ষিতে, রোজায় অন্যান্য ব্র্যান্ডের তুলনায় ওয়ালটন পণ্যের বিক্রি অনেক বেড়েছে বলে জানান তিনি। 
রাজশাহী জোনের মতো চট্টগ্রাম, কুমিল্লা, বগুড়া, সিলেট, নোয়াখালী, টাঙ্গাইলসহ দেশের অন্যান্য অঞ্চলেও ওয়ালটন পণ্যের বিক্রি বেড়েছে আশাতীত।  
ওয়ালটন বিপণন বিভাগের বগুড়া জোনের এরিয়া ম্যানেজার রাফা নাঈম  জানান, গত রমজানের তুলনায় চলতি রোজায় ওয়ালটন পণ্য ভালো বিক্রি হচ্ছে। বিক্রয় বৃদ্ধিতে বিশেষ ভূমিকা রেখেছে ফ্রিজ, এলইডি টিভি ও রাইসকুকার। নিঁখুত ফিনিশিং ও আকর্ষণীয় আউটলুকের জন্য রোজায় এঅঞ্চলের গ্রাহক পছন্দের শীর্ষে উঠে এসেছে ওয়ালটনের ইনভার্টার প্রযুক্তির নন-ফ্রস্ট ফ্রিজ। মানে উন্নত, দামে সাশ্রয়ী এবং ডিজাইন ও কালারে বৈচিত্র্য থাকায় ফ্রিজের চাহিদার শীর্ষে বলেও জানান তিনি। 
ওয়ালটনের চট্টগ্রাম জোনের এরিয়া ম্যানেজার মো. ইমরুজ জানান, রমজান মাসের শুরু থেকেই ইনভার্টার প্রযুক্তির নন-ফ্রস্ট ফ্রিজ ও এসির বিক্রি বেড়েছে।  তার মতে, ওয়ালটনের ৩২ ও ৪৩ ইঞ্চি টিভির চাহিদা বেশি। মানের দিক থেকে অতি উন্নত ও দামেও সাশ্রয়ী হওয়ায় রোজায় এলইডি টিভির বিক্রি অনেক বেড়েছে। ঈদকে ঘিরে ওয়ালটন ব্র্যান্ডের ল্যাপটপ ও মোবাইল ফোনের বিক্রি উল্লেখযোগ্যহারে বেড়েছে। বিশেষ করে ছাত্র-ছাত্রীদের কাছে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে ওয়ালটন ল্যাপটপ। এর পেছনে অন্যতম কারন হচ্ছে- অন্যান্য ব্র্যান্ডের তুলনায় ওয়ালটন ল্যাপটপের দাম কম, বিজয় বাংলা সফটওয়্যার ও কিবোর্ড  এবং মানের দিক থেকে আন্তর্জাতিক ব্র্যান্ডের ল্যাপটপের সমমান। 
ওয়ালটন হোম অ্যাপ্লায়েন্সেসের প্রোডাক্ট ম্যানেজার মো. মাশরুর হাসান জানান, চলতি রমজান মাসে গতবারের চেয়ে ৩০ শতাংশ বেশি পণ্য বিক্রির টার্গেট নেয়া হয়েছিল। ইতোমধ্যে, গত বছরের মোট বিক্রিকে ছাড়িয়ে গেছে। বিক্রির এই ধারা অব্যাহত থাকলে মাস শেষে টার্গেটের চেয়ে বেশি পণ্য বিক্রি হবে। 
ওয়ালটনের খুলনা অঞ্চলের এরিয়া ম্যানেজার এ. কে. এম আসাদুজ্জামান বলেন, ঈদ ঘনিয়ে আসায়ক্রেতাদের ভিড় ব্যাপক বাড়ছে। এখানে প্রতিদিনই বৃষ্টি হচ্ছে। তারপরেও ক্রেতা সমাগম বাড়ছে। 
ওয়ালটন সূত্র জানায়, উৎপাদনে অত্যাধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার, বিশ্বমান সম্পন্ন পণ্য, অসংখ্য মডেল ও বৈচিত্র্যময় কালার, সাশ্রয়ী মূল্য, সহজ কিস্তি সুবিধা, ফ্রিজে এক বছরের রিপ্লেসমেন্ট গ্যারান্টির সুবিধা, সর্বোচ্চ ৩৬ মাসের সহজ কিস্তিতে পণ্য ক্রয়ের সুবিধা, দ্রুত ও সর্বোত্তম বিক্রয়োত্তর সেবার নিশ্চিয়তা, দেশব্যাপী বিস্তৃত সেলস ও সাভির্স নেটওয়ার্ক এবং দেশেই তৈরি হয় বিধায় গ্রাহকদের আস্থা ও মন জয় করে নিয়েছে ওয়ালটন পণ্য। 
দেশের ইলেকট্রনিক্স পণ্যের বৃহৎতম বাজার বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়াম মার্কেটে আবাবিল ইলেট্রনিক্স এর ম্যানেজার রাজু আহমেদ জানান, ইলেকট্রনিক্স পণ্যের মধ্যে এবারের রোজায় সবচেয়ে বেশি বিক্রি হয়েছে ওয়ালটনের পণ্য। রাজধানীর নয়াপল্টনে ওয়ালটন প্লাজার এ্যাসিস্ট্যান্ট ম্যানেজার মোহাম্মদ কামরুজ্জামান বলেন, হোম ও কিচেন এ্যাপ্লায়েন্স বিক্রি হচ্ছে আশানুরূপ। তিনি আরো জানান, এবার হটকেকে পরিণত হয়েছে ওয়ালটনের টেম্পারড গ্লাস ডোরের ফ্রিজ। 
 

অর্থনীতি'র অন্যান্য খবর

©সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি