ঢাকা, মঙ্গলবার ২৭ জুন ২০১৭  ,
২৩:৫০:৫৮ জুন  ১৮, ২০১৭ - বিভাগ: জাতীয়


সরকারি গুদামে চালের মজুদ দুই তৃতীয়াংশ কমেছে

নিজস্ব প্রতিবেদক

সরকারি গুদামে চালের মজুদ দুই লাখ মেট্রিক টনের নিচে নেমে গেছে। গত বছরও এই সময় মজুদের পরিমাণ ছিল প্রায় ৬ লাখ মেট্রিক টন। সরকারি সূত্র বলছে- উৎপাদন কম, সংগ্রহ লক্ষ্যমাত্রা পূরণ না হওয়া এবং নানা প্রাকৃতিক দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্তদের খাদ্য সহায়তা দেওয়ার কারণে মজুদ কমেছে। এদিকে, প্রতিদিনই বাজারে বাড়ছে চালের দাম। ঢাকার বাজারে মোটা চালের দাম এখন কেজিপ্রতি ৫০ টাকা ছুঁই ছুঁই। দাম বেড়েছে শতকরা ৫০ ভাগ। চাল নিয়ে সংকটের শুরু আরও কয়েক মাস আগেই। খাদ্য অধিদফতরের তথ্য অনুযায়ী, গেলো বছর জুন মাসে সরকারি গুদামে চালের মজুদ ছিল ৫ লাখ ৫১ হাজার ৪’শ ১৫ মেট্রিকটন। এবছর একই সময়ে মজুদের পরিমাণ ১ লাখ ৯৫ হাজার ৮’শ ৯৫ মেট্রিক টন। গেলো বছরের চেয়ে মজুদ কম ৩ লাখ ৫৫ হাজার ৫’শ ২০ মেট্রিক টন। একই চিত্র  গমের মজুদেও। এবছর চলতি বোরো মৌসুমে ৮ লাখ মেট্রিক টন চাল সংগ্রহের সরকারি লক্ষ্যমাত্রা থাকলেও তা অর্জনে নিয়েও সংশয় দেখা দিয়েছে। কৃষি মন্ত্রণালয়ের তথ্য মতে, এবছর হাওরাঞ্চলের ৬ জেলায় অকাল বন্যায় ধানের উৎপাদন কমেছে প্রায় ২০ হাজার মেট্রিক টন। যদিও বেসরকারি হিসেবে এর পরিমাণ আরও বেশি। কিছুদিন ধরেই অস্থিরতা বিরাজ করছে চালের বাজারে। সব রকম চালের দাম এক বছরে কেজিতে বেড়েছে ১০ থেকে ১৬ টাকা পর্যন্ত। চাল সংকট নিয়ে নিয়ে খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম জানান, প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের কারণে খানিকটা সংকট তৈরি হয়েছে। মজুদ বাড়াতে ইতোমধ্যে চাল আমদানির উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে জানান তিনি। এর মধ্যে ভিয়েতনাম থেকে আড়াই লাখ টন চাল আমদানির প্রক্রিয়া প্রায় চূড়ান্ত। কৃত্রিম সংকট তৈরি করে কেউ যাতে বাজার অস্থিতিশীল করতে না পারে সে বিষয়ে সরকার সজাগ রয়েছে বলেও জানান খাদ্যমন্ত্রী।


জাতীয় 'র অন্যান্য খবর

©সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি