ঢাকা, শনিবার ২৫ নভেম্বর ২০১৭  ,
১০:৪০:৪৯ জুন  ১৪, ২০১৭ - বিভাগ: ফরিদপুর


শরীয়তপুরে তুচ্ছ ঘটনায় ফল ব্যবসায়ীকে খুন

Image

তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে শরীয়তপুর সদর উপজেলার দক্ষিণ গোয়ালদী গ্রামের এক ফল ব্যবসায়ী খুন হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন অন্তত আরো ১০ জন। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য শরীয়তপুর সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।


আহত আকতার মাদবর নামের একজন বলেন, মঙ্গলবার রাত অনুমান সাড়ে ১১টার দিকে শরীয়তপুর সদর উপজেলার আড়িগাঁও বাজার থেকে কাজকর্ম সেরে স্থানীয় দক্ষিণ গোয়ালদী গ্রামের শ্রমিক আকতার মাদবর বাড়ি ফেরার পথে শাহজাহান বেপারীর দোকানের কাছে পৌঁছলে তার হাতের টর্চ লাইটের আলো একই গ্রামের পথচারী জামাল বেপারীর চোখে পড়ে। এ নিয়ে উভয়ের মধ্যে কথা-কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে জামাল বেপারী উত্তেজিত হয়ে তার আত্মীয়স্বজনকে ফোন করে খবর দেয়। খবর পেয়ে তারা দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে ঘটনাস্থলে যায়। এ সংবাদ পেয়ে আকতার মাদবরের আত্মীয়স্বজনেরাও ঘটনাস্থলে আসে। এ সময় দুই গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া ও ইটপাটকেল নিক্ষেপ হয়। এ সময় সংঘর্ষে প্রতিপক্ষের ইটের আঘাতে আকতার মাদবরের চাচাত ভাই আড়িগাঁও বাজারের ফল ব্যবসায়ী শাহিন মাদবর (২৮) গুরুতর আহত হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করে। এ ঘটনায় আকতার মাদবর, জলিল মাদবর, বাবুল মাদবর, করিম বেপারীসহ কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়। আহতদেরকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। এ নিয়ে এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতাল মর্গে নেওয়া হয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

শাহিন মাদবরের স্ত্রী শাহিনুর বেগম কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, আমার ছেলে মেয়েদের এতিম করেছে জামাল বেপারী। এখন ওদেরকে ঈদের নুতন জামা কাপড় কে কিনে দেবে। আমি জামাল বেপারীর ফাঁসি চাই।

পালং মডেল থানার ওসি মোঃ খলিলুর রহমান বলেন, মৃত্যু নিয়ে সন্দেহ আছে। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়না তদন্তের রিপোর্ট পাওয়া গেলে কার্যকরী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ফরিদপুর 'র অন্যান্য খবর

©সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি