ঢাকা, শনিবার ২৫ নভেম্বর ২০১৭  ,
২০:৫৪:১৪ জুন  ০৭, ২০১৭ - বিভাগ: ময়মনসিংহ


জলাবদ্ধতায় ময়মনসিংহ বিসিক শিল্পনগরী

শেখ মো. ফুয়াদ, ময়মনসিংহ জেলা

সড়কের বেহাল দশা আর জলাবদ্ধতার কারণে চলতি বর্ষায় ডুবতে বসেছে ময়মনসিংহের বিসিক শিল্পনগরী। ভাঙ্গাচোরা ও খানাখন্দের সড়ক মেরামতে নেই কোনো দৃশ্যমান উদ্যোগ। জলাবদ্ধতা সমস্যা সমাধানেও নির্বিকার বিসিকের স্থানীয় কর্তৃপক্ষ। ফলে প্রতিনিয়ত চরম দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে স্থানীয় ক্ষুদ্র শিল্প মালিক ও শ্রমিক কর্মচারীরা। শিল্পবান্ধব পরিবেশ না থাকায় ক্ষতিগ্রস্ত মালিকরা হতাশ ও ক্ষুব্ধ। বিসিকের স্থানীয় উপ-মহাব্যবস্থাপক শাহ নূরুজ্জামান বরাবরেই মতোই আশার বাণী শুনিয়ে জানান, বিসিক শিল্পনগরীরর উন্নয়নে পাঁচ কোটি টাকা বরাদ্দের একটি প্রস্তাব অনুমোদন পেলে কোনো সমস্যাই আর থাকবে না। অর্থ মন্ত্রণালয়ে পড়ে থাকা প্রস্তাবটি কবে নাগাদ মিলতে পারে অনুমোদন প্রশ্নে লা জবাব বিসিকের এই কর্মকর্তা। বিসিকের স্থানীয় কর্তৃপক্ষ সূত্র জানায়, গত ১৯৬৮ ও ১৯৯১ সালে দুই দফায় ময়মনসিংহ শহরের মাসকান্দায় প্রায় ২০ একর জমিতে গড়ে তোলা হয় বিসিক শিল্পনগরী। এ সময়ে ১০৫টি প্লটে ছোট বড় শতাধিক কারখানা প্রতিষ্ঠা করা হয়। বেশ কিছু কারখানা রুগ্ন থাকার পরও এসব কারখানায় পাঁচ হাজারের বেশি শ্রমিক-কর্মচারী কাজ করছে। প্রতিষ্ঠাকালীন বিসিকের চারপাশ ছিল খালি ও নিচু এলাকা। আর অপেক্ষাকৃত উঁচু জমিতে ছিল বিসিকের শিল্পকারখানা। ফলে বিসিকের পানি খুব সহজেই নেমে যেতে পারত। কিন্তু এসময়ে বিসিকের চারপাশের খালি ও নিচু এলাকা ভরাট করে গড়ে উঠেছে ঘন বসতির আবাসিক এলাকা। এতে করে বিসিকের পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থা কার্যত অচল হয়ে পড়েছে।  এছাড়া দীর্ঘদিনেও বিসিকের ভেতরের রাস্তাঘাট মেরামত না করায় সবকটি রাস্তাঘাট ভেঙে খানাখন্দে পরিণত হয়েছে। বর্ষায় এসব খানাখন্দে হাঁটু কিংবা কোমর সমান পানি জমে ডোবায় রূপ নিয়েছে। পণ্যবাহী ট্রাক ও পিকআপসহ কাভার্ড ভ্যান এসব খানাখন্দ পার হওয়ার সময় পাতি ভেঙ্গে কিংবা টায়ার ফেটে প্রায়ই বিকল হয়ে রাস্তার ওপর পড়ে থাকছে। বিসিকের প্রধান সড়কে নিয়মিত এভাবে পণ্যবাহী ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান বিকল হয়ে পড়ে থাকার কারণে বিঘিœত হচ্ছে পণ্য পরিবহন। ফলে মারাÍকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে শিল্প মালিকরা। এদিকে নিয়মিত পরিস্কার না করায় বিসিকের ড্রেনগুলোতে ময়লা-আবর্জনা জমে এবং গাইড ওয়াল ভেঙে অকার্যকর হয়ে পড়েছে। ফলে সামান্য বৃষ্টি হলেই ড্রেন উপচে রাস্তা গড়িয়ে পানি ঢুকে পড়েছে কারখানার ভেতরে। এ সময় শ্রমিক কর্মচারীদেরগ দুর্ভোগের সীমা থাকছে না। ব্যাহত হচ্ছে উৎপাদন। এসবের বাইরে বিদ্যুতের লোডশেডিং ও লো ভোল্টেজের সমস্যা তো আছেই। এসব নানা কারণে বিসিকের শিল্প মালিকরা লোকসানের মুখে পড়েছেন। ওমর বেকারির মালিক সালমান ওমর রুবেল ক্ষোভ প্রকাশ করে জানান, বিসিকের এই সমস্যা দীর্ঘদিনের। বিসিক ও পৌর কর্তৃপক্ষকে নিয়মিত সার্ভিস চার্জসহ নানাবিধ কর দেওয়ার পরও মিলছে না বিন্দুমাত্র সহায়তা। ফলে অনেক কারখানা রুগ্ন হতে চলেছে। শিল্প মালিক নজরুল ইসলাম জানান, বেহাল রাস্তার কারণে পণ্য পরিবহনে কোনো ট্রাক বিসিকে আসতে চায় না। ফলে অতিরিক্ত ভাড়াগুনে পন্যসামগ্রী পরিবহন করতে হচ্ছে মালিকদের। স্থানীয় দৈনিক জাহান সম্পাদক অধ্যাপিকা রেবেকা ইয়াসমিন অভিযোগ করে জানান, জলাবদ্ধতা দূর করা ও বেহাল রাস্তাঘাট মেরামতে বিসিক কর্তৃপক্ষ ও পৌরসভাকে বার বার বলার পরও তাদের টনক নড়ছে না। বিসিকের ভেতরের অবস্থা এতটাই বেহাল যে, খোদ বিসিক কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের অফিস করতে হচ্ছে পেছনের রাস্তা দিয়ে।


ময়মনসিংহ'র অন্যান্য খবর

©সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি